তাজিয়া মিছিলে বোমা বিস্ফোরণ: নিহত ১, আহত ১০০
জাতীয়

তাজিয়া মিছিলে বোমা বিস্ফোরণ: নিহত ১, আহত ১০০

তাজিয়া মিছিলে বোমা বিস্ফোরণ: নিহত ১, আহত ১০০ রাজধানীর পুরান ঢাকার হোসেনী দালানের সামনে শিয়া সম্প্রদায়ের সমাবেশে পরপর তিনটি বোমা বিস্ফোরণে সানজু (১৮) নামে এক কিশোর নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন শতাধিক ব্যক্তি।

আহতদের মধ্যে ৫৭ জন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, ১৭ জন মিটফোর্ড হাসপাতালে ও ১৬ জন মগবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে এ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহতরা হলেন- আবদুর রহিম (৩০), নাঈম হোসেন (৩৫), লাবনী আকতার (১৪), আয়শা আকতার (১২), সালাউদ্দিন (৪৫), তুহিন (১২), সুদীপ (২১), মাহবুবুর রহমান (২৬), রাকিব হোসেন (২৬) ও আয়াত উদ্দিন (২৬)।

চকবাজার থানার ওসি আজিজ আহমেদ জানিয়েছেন, আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতি চলাচালে শুক্রবার রাত ১টা ৫৫ মিনিটের দিকে হোসেনী দালান চত্বরে পরপর তিনটি বিস্ফোরণ ঘটে।

ইমরান হোসেন নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, তাজিয়া মিছিল উপলক্ষে হোসেনী দালানের সামনে রাতে সবাই জড়ো হয়। দেড়টার দিকে হঠাৎ পরপর তিনটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে।

এ সময় শতাধিক লোক আহত হয়। তাৎক্ষণিক আহতদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও অন্যান্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ক্যাম্প ইনচার্জ মোজাম্মেল হক জানান, আহতদের মধ্যে সানজু নামে এক যুবক রাত ৩টার দিকে মারা যায়। এ ছাড়া ১০ জনের অবস্থা গুরুতর। তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে স্প্লিন্টার বিদ্ধ হয়েছে। সবার চিকিৎসা চলছে।

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিলে অংশ নিতে পুরান ঢাকার হোসেইনী দালানে আসেন নগরীর বিভিন্ন এলাকার মানুষ। এদের অধিকাংশই শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত।

মহানবীর (সা.) দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) শহীদ হওয়ার দিনকে শিয়া সম্প্রদায়ের মানুষেরা ত্যাগ ও শোকের প্রতীক হিসেবে পালন করে থাকেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত রাত দেড়টা থেকে হোসনি দালানের মূল ফটকে একটি তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতি চলছিল। মিছিলটি পল্টনে যাওয়ার কথা ছিল। মিছিলে যোগ দিতে এসেছিলেন তরুণ, বৃদ্ধ, নারী ও শিশুরা। এর মধ্যেই রাত পৌনে দুইটার দিকে মুহুর্মুহু বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে ওঠে পুরো এলাকা।

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অংশ বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশকে অস্থিতিশীল ও আতঙ্ক তৈরি করতেই দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র চলছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেছেন, ‘তাজিয়া মিছিলে বোমা বিস্ফোরণ সেই ষড়যন্ত্রেরই বাহিঃপ্রকাশ।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে শনিবার দুপুর সোয়া ১২টায় হোসেনী দালানের সামনে বিস্ফোরণে আহতদের দেখতে যান তিনি। সেখান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘আমাদের নিরাপত্তার কোনো দুর্বলতা ছিল না। আমাদের যথেষ্ট নিরাপত্তা ছিল। তবে কারা, কেন, কিভাবে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে তা খতিয়ে দেখব। আমাদের কাছে যথেষ্ট তথ্য আছে। যারা ঘটিয়েছে তারা সংঘবদ্ধ।’

এ ঘটনায় জঙ্গী সম্পৃক্ততা রয়েছে কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী এ বিষয়ে সরাসরি উত্তর না দিলেও বলেন, ‘আনসারুল্লাহ, হুজি, জেএমবি, আলকায়েদা, আইএস সব এক জায়গার প্রডাক্ট। আমরা কখনোই তাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে দেইনি। আর কখনও দিবোও না।’

ঘটনাস্থল থেকে দুটি অবিস্ফোরিত বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। সেগুলো গ্রেনেড না বোমা এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘যেগুলো উদ্ধার হয়েছে সেগুলো গ্রেনেড বা বোমা নয়। সেগুলো দেশীয় তৈরি। তবে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।’

‘৪০০ বছরের ইতিহাসে প্রথম হামলা’

রাজধানীর পুরোনো ঢাকায় আশুরা উপলক্ষে শিয়াদের তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতি চলার সময় বোমা হামলায় অন্তত এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় ৬০ জনেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

ঢাকার হোসেনী দালান চত্বরে শুক্রবার দিবাগত রাত দু’টার দিকে এই হামলা ঘটে।

বাংলাদেশে এই প্রথম তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলার ঘটনা ঘটলো। পুলিশ জানিয়েছে, বোমা হামলায় ঘটনাস্থলেই সাজ্জাদ হোসেন নামের ১৫-বছর বয়সী এক কিশোর নিহত হয়। তার বাড়ি লালবাগ এলাকায় এবং সে তাজিয়া মিছিলে অংশ নিতে সেখানে এসেছিল।

আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তাদের চিকিৎসায় বহু মানুষ হাসপাতালে গিয়ে স্বেচ্ছায় রক্ত দিয়েছেন। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আহতদের বেশিরভাগই আশঙ্কামুক্ত।

তাজিয়া মিছিলের সংগঠকদের অন্যতম একজন এম. এম. ফিরোজ হোসাইন বিবিসি বাংলাকে বলেন, আমরা শিয়া মুসলিমরা ৪০০ বছর ধরে ঢাকায় এই তাজিয়া মিছিলের আয়োজন করে আসছি। কখনও আমরা কোন ধরণের হুমকি পাইনি এবং কখনও আমাদের ওপর কোন হামলাও হয়নি।

‘বাংলাদেশে সকলের সাথে ভালো সম্পর্ক এবং সম্প্রীতির পরিবেশ আমরা পেয়েছি।

তিনি এই হামলাকে ন্যাক্কারজনক ঘটণা বলে বর্ণনা করেন। মি. হোসাইন বলেছেন, দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য এই হামলা করা হয়েছে বলে তারা মনে করছেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *