ঢাবিতে দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ বন্ধ

ঢাবিতে দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ বন্ধ

211
0
SHARE

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় দ্বিতীয় দফায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় দ্বিতীয় দফায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। ফলে প্রথম বছর ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার পর দ্বিতীয় বছর ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা আর অংশগ্রহণ করতে পারবে না বলেও জানা গেছে। অর্থাৎ শুধু ওই বছর এইচএসসিতে উত্তীর্ণরা অংশ নিতে পারবে। পুরাতনরা পারবে না।
মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের চূড়ান্ত ভর্তি পরীক্ষা কমিটির  এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানা গেছে।

ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আগামী বছর থেকে যারা চলতি বছর এইচএসসি পাশ করবে শুধুমাত্র তারাই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে।  দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ দেওয়া হলে অসম প্রতিযোগিতা হয়। কারণ দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষায় অংশগহণকারী এক বছর সময় পায় প্রস্তুতির জন্য। অন্যদিকে প্রথমবার অংশগ্রহণকারী উচ্চমাধ্যমিকে পাস করেই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে।

তিনি আরও বলেন, অনেক শিক্ষার্থী প্রথমবার কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে ফের ভর্তি বাতিল করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে। ফলে যেখানে প্রথমবার ভর্তি হয়েছে, সেখানকার আসন ফাঁকা হয়ে যায়। এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবার ভর্তির সুযোগ পাওয়া অনেক শিক্ষার্থীও পছন্দের বিষয়ে পড়ার জন্য দ্বিতীয়বার পরীক্ষা দেয়। পছন্দের বিষয়ে পড়ার সুযোগ পেলে সেখানে নতুন করে ভর্তি হয়। ফলে আগের বিভাগের আসন ফাঁকা থেকে যায়।

তিনি বলেন, কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করার জন্য এ বছর উচ্চ মাধ্যমিকের ফল ঘোষণার পরদিনই ভর্তি কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। একবার ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দিলে শিক্ষার্থীদের আর কোচিং সেন্টারে যাওয়ার সুযোগ থাকবে না।

তিনি বলেন, বিষয়টি চূড়ান্ত ভর্তি পরীক্ষা কমিটিতে আলোচনা করে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি ঠেকাতে শিক্ষার্থীদের দ্বিতীয় দফায় পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সুযোগ বন্ধ এবং ইংরেজি বিভাগে ভর্তির শর্ত শিথিল করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া দ্বিতীয় দফায় ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়া বন্ধ হলে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমে যাবে এবং বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই সব পরীক্ষা নেওয়া যাবে বলে মনে করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এতে জালিয়াতি থাকবে না। পাশাপাশি দ্বিতীয়বার এই ভর্তি চক্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের আসনও নষ্ট হবে না।

এতোদিন এইচএসসি উত্তীর্ণরা টানা দুইবার ভর্তি পরীক্ষায় বসার সুযোগ পেতেন।

 

ইংরেজি বিভাগে ভর্তির শর্ত শিথিল

এদিকে ভর্তি পরীক্ষায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়ায় ইংরেজি বিভাগে ভর্তির শর্ত শিথিল করা হয়েছে বলে উপাচার্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ইংরেজিতে ভর্তির জন্য ‘ইলেকটিভ ইংলিশ’ এ  ১৫ নম্বর পাওয়ার শর্ত শিথিল করে ন্যূনতম পাশ নম্বর ৮ করা হয়েছে এবং ‘সাধারণ ইংরেজিতে’ ২০ থেকে কমিয়ে ১৮ নম্বর করা হয়েছে।

এরপরেও ‘খ’ ইউনিটের মাধ্যমে আসন পূরণ করা না গেলে বিভাগ পরিবর্তনের ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে একই শর্তে ইংরেজি বিভাগে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে।

এবার ইংরেজি বিভাগে ভর্তির জন্য পরীক্ষায় ‘সাধারণ ইংরেজিতে’ ৩০ নম্বরের মধ্যে ২০ এবং ‘ইলেকটিভ ইংলিশে’ ১৫ পাওয়ার শর্ত দেওয়া হয়েছিল।

তবে ‘খ’ ইউনিট থেকে ‘ইলেকটিভ ইংলিশ’-এ মাত্র দুইজন পরীক্ষার্থী পাস করায় (ন্যূনতম ১৫ পাওয়ায়) ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে  ইংরেজিতে ভর্তির শর্ত শিথিলের ইঙ্গিত দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এবার ইংরেজি বিভাগে প্রথম বর্ষে ১৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে, যাদের ১২৫ জনই কলা অনুষদের অধীন ‘খ’ ইউনিট থেকে আসার কথা। বাকী ২৫ জনকে নেয়ার কথা সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীন ‘ঘ’ ইউনিট থেকে।

Comments

comments