ড্র টেস্টে মুস্তাফিজের আরেকটি বিশ্ব রেকর্ড

ড্র হওয়া চট্টগ্রাম টেস্টে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়ার কল্যাণে নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়ছেন মুস্তাফিজ।

ড্র হওয়া চট্টগ্রাম টেস্টে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়ার কল্যাণে নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়ছেন মুস্তাফিজ। ড্র হওয়া চট্টগ্রাম টেস্টে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়ার কল্যাণে নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়ছেন মুস্তাফিজ।

ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে দুই ফরম্যাটের ক্রিকেটে অভিষেকেই ম্যাচসেরা হয়েছেন মুস্তাফিজ। ভারতের বিরুদ্ধে ওয়ানডে অভিষেকে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছিলেন; এবার টেস্ট অভিষেকেও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচের সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার বগলদাবা করেছেন তিনি। আর দুই ফরম্যাটের অভিষেকে সেরার স্বীকৃতি মুস্তাফিজকে এনে দিয়েছে বিরল বিশ্ব রেকর্ড। এই তালিকার প্রথম ক্রিকেটার তিনি। বলতেই হয়, ক্রিকেট ইতিহাসের পাতায় নতুন পাতা সংযোজন করালেন বাংলাদেশের এই ক্রিকেটার।

এর আগেও ক্রিকেট ইতিহাসে বিরল রেকর্ড গড়েছিলেন আরেক বাংলাদেশী। ২০১৩ সালে এই চট্টগ্রামেই সোহাগ গাজী সেঞ্চুরি ও হ্যাটট্রিকের নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।

এর আগে,বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকার চট্টগ্রাম টেস্ট বৃষ্টির কারণে ড্র হয়েছে। বিরামহীন বৃষ্টিতে খেলা হয়নি শেষ দিনেও।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এই প্রথম কোনো টেস্টে ড্র করল বাংলাদেশ।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে খেলা আগের আট টেস্টেই হেরেছে বাংলাদেশ, যার সাতটি ছিল ইনিংস ব্যবধানে।

বৃষ্টির কারণে চতুর্থ দিন ভেস্তে যাওয়ার পর পঞ্চম দিনেও কোনো বল মাঠে গড়ায়নি। ফলে, শনিবার (২৫ জুলাই, ম্যাচের পঞ্চম দিন) দুপুর ১২টায় ম্যাচের দায়িত্বে থাকা আম্পায়াররা দিনের খেলা পরিত্যক্ত ঘোষণার সঙ্গে প্রথম টেস্ট ড্র বলে সিদ্ধান্ত দেন।

এর আগে দ্বিতীয় দিন বৃষ্টির কারণে ২৫ ও পরের দিন ২৪.৫ ওভার আগে খেলা শেষ হয়।

দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৬১ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথম ইনিংসে ২৪৮ রানে অল আউট করে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৩২৬ রান করে ৭৮ রানের লিড নেয় স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকার চট্টগ্রাম টেস্ট ড্রয়ের ঘোষণা এসেছে দুপুর ১২টার সময়ই। বাংলাদেশ দল সাগরিকায় এসে ঘুরে হোটেলে চলে গেছে। বিকালে বিশ্ব রেকর্ডের বিষয়ে কথা হয় বিস্ময় বালক মুস্তাফিজের সঙ্গে। নতুন বিশ্ব রেকর্ড সম্পর্কে মুস্তাফিজ বলেন, “এখন অনেক ভালো লাগছে। এর আগে কেউ হয় নাই। আমি প্রথম।”

এমন কোনো চিন্তা ম্যাচ খেলতে নামার আগে ছিল না জানিয়ে বাঁহাতি এই পেসার বলেন, “এ রকম কিছু ছিল না। আমার টার্গেট থাকে, যদি আমারে ম্যাচ খেলায় ভালো করার চেষ্টা করব।”

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারটা এত বর্ণিল হতে পারে, এমন ভাবনাও ছিল না বাংলাদেশের এই তরুণের। তিনি বলেন, “এমন ভাবি নাই। ভালো করার চিন্তা। টেস্টে তো দক্ষিণ আফ্রিকা এক নম্বর দল। আমার প্রথম টার্গেট ছিল, আমাকে যদি ম্যাচ খেলার সুযোগ দেয়, আমি আমার সেরাটা খেলার চেষ্টা করব দেশের জন্য।”

চট্টগ্রাম টেস্টে ৩৭ রানে ৪ উইকেট নেন মুস্তাফিজ। দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসের ৬০তম ওভারে চার বলে নেন তিন উইকেট। প্রথম বলে আমলাকে, দ্বিতীয় বলে ডুমিনিকে এলবির ফাঁদে ফেলেন। তৃতীয় বলে ডি কক হ্যাটট্রিক ঠেকান। কিন্তু চতুর্থ বলে ডি ককের স্ট্যাম্প উপড়ে দেন বাঁহাতি এই পেসার।

টেস্ট ক্রিকেটে চার বলে তিন উইকেট নেয়া ৩৬তম বোলার মুস্তাফিজ। আর অভিষেকে মুস্তাফিজের আগে চার বলে তিন উইকেট নিয়েছিলেন তিন জন ক্রিকেটার। এর আগে ওয়ানডে অভিষেকেও দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ডে নাম লিখিয়েছিলেন ১৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। ক্যারিয়ারের প্রথম দুই ম্যাচে সর্বোচ্চ উইকেট তার দখলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *