ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন জানুয়ারিতে করা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ।
জাতীয়

‘জানুয়ারিতে ডিসিসি নির্বাচন সম্ভব হবে না’

ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন জানুয়ারিতে করা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ।ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন জানুয়ারিতে করা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের মিডিয়া সেন্টারে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। ‘প্রধানমন্ত্রী ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন’—মন্ত্রিসভার বৈঠকের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশের পর হঠাৎ এ সংবাদ সম্মেলন করে সিইসি।

জানুয়ারিতে নির্বাচন সম্ভব কিনা? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন কেন করব? আমাকে সময় দিতে হবে। সীমানা নির্ধারণ, ভোটার তালিকা মুদ্রণ ও তফসিল ঘোষণার জন্য সময়ের প্রয়োজন।

জানুয়ারিতে তফসিল ঘোষণা করা হলে নির্বাচন করতে করতে ফেব্রুয়ারি মাস চলে আসবে। সে সময় দেশে বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই বিষিয়টি নিয়ে তারা চিন্তিত কি না সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন , ‘এটা নিয়ে ভাবছি না। আগে চিঠি পাই তারপর আমরা আমাদের পরিকল্পনাগুলো বিভিন্ন ছকে ভাগ করবো। তবে পরীক্ষার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখবো। কারণ শিক্ষক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নির্বাচনে ব্যবহার করা হয়।’

তিনি বলেন, সংবাদপত্রে দেখলাম জানুয়ারিতে নির্বাচনের কথা। আগের দিন দেখলাম ডিসিসি নির্বাচন হচ্ছে না। তবে এ কথা খুব পরিষ্কার—আমরা অনেক আগে থেকেই প্রস্তুত। কিন্তু ডিসিসি উত্তর ও দক্ষিণে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা সত্ত্বেও উপরের চাপ থাকলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় দ্রুত সীমানা পুনর্নির্ধারণ করে আমাদের অনুরোধ জানাতে পারে। অন্যথায় বাধা দূর হয়ে গেলে যত দ্রুত সম্ভব আমরা নির্বাচনটি করতে চাই।

কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বিদ্যমান আইনি জটিলতা নিরসন হলে ‘আলহামদুলিল্লাহ’। বর্তমানে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ চলছে। এখন নির্বাচন করতে হলে পুরনো ভোটার তালিকায় করতে হবে। প্রায় ৫ লাখ নতুন ভোটার ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হবেন।

তিনি বলেন, বড় পরীক্ষাগুলো চলাকালে আমরা নির্বাচন এড়িয়ে চলি। তাই পরীক্ষার সময়সূচি দেখে প্রস্তুতি নেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম-সচিব জেসমিন টুলী।

উল্লেখ্য, ডিসিসি দক্ষিণের ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডের সীমানা নির্ধারণে জটিলতা রয়েছে। উত্তরে উত্তরার ১১ থেকে ১৪ নম্বর সেক্টর, দক্ষিণগাঁওয়ের সীমানা বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *