ডালাসে বন্দুকধারীর গুলিতে ৫ পুলিশ নিহত
আন্তর্জাতিক

ডালাসে বন্দুকধারীর গুলিতে ৫ পুলিশ নিহত

ডালাসে বন্দুকধারীর গুলিতে ৫ পুলিশ নিহতযুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের ডালাস শহরে দুই কৃষ্ণাঙ্গের মৃত্যুর পর বিক্ষোভের মধ্যে স্নাইপার রাইফেলের গুলিতে গুলিবর্ষণে পাঁচ পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় ১১ পুলিশ গুলিবিদ্ধ হন।

২০০১ সালে টুইন টাওয়ারে হামলার পর এটি মার্কিন পুলিশ কর্মকর্তাদের ওপর সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা বলে জানিয়েছে দা ন্যাশনাল ল এনফোর্সমেন্ট অফিসার্স মেমোরিয়্যাল ফান্ড।

ডালাসের পুলিশ প্রধান ডেভিড ব্রাউন বলেছেন, বিক্ষোভ চলাকালে দুই স্নাইপার্স একটি উঁচু স্থান থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আহত পুলিশ সদস্যদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান তিনি।

ব্রাউনের বিবৃতিতে বলা হয়, আহত পুলিশ কর্মকর্তাদের তিনজনের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারীকে সনাক্ত করে তার ছবি প্রকাশ করেছে পুলিশ। তিনি একটি গ্যারেজে আশ্রয় নিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় পৌনে ৯টার দিকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। টেলিভিশনে প্রচারিত এক ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, দুই কৃষ্ণাঙ্গ খুনের প্রতিবাদে ডালাসের কেন্দ্রস্থলে জড়ো হচ্ছে শত শত মানুষ। এ সময় আকস্মিকভাবে গুলি শুরু হলে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। আতঙ্কিত লোকজন দৌড়ে এদিক-দিক ছুটতে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাটন রুজ, লুইজিয়ানা এবং মিনেসোটার সেন্ট পলে চলতি সপ্তাহে তিনজন কৃষ্ণাঙ্গকে পুলিশের গুলি করার প্রতিবাদে এ বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার ডালাস, নিউইয়র্ক, শিকাগো, ওয়াশিংটনসহ বেশ কয়েকটি শহরে কৃষ্ণাঙ্গরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

লুইজিয়ানার ব্যাটন রুজ শহরে মঙ্গলবার পুলিশের গুলিতে এক কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হয়। বুধবার মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যে আরেকজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে মিনেসোটার সেন্ট পলে ফিলানডো ক্যাসটিলে নামের এক কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি করছে।

ক্যাসটিলের প্রেমিকার অভিযোগ, পুলিশ ক্যাসটিলের কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ও রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে জানতে চায়। ক্যাসটিলে পুলিশকে জানান, তার কাছে একটি পিস্তল আছে এবং তা বহন করার জন্য লাইসেন্সও রয়েছে। পরে পুলিশ তাকে গুলি করে।

মিনেসোটার গভর্নর মার্ক ডেটন সেন্ট পলে গুলির ঘটনা তদন্তে কেন্দ্রীয় তদন্ত কমিটি গঠণ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ক্যাসটিলে যদি শেতাঙ্গ হতো তাহলে তাকে গুলি করা হতো না।

দুই কৃষ্ণাঙ্গ খুনের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে আমেরিকার বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রের ফার্গুসন, মিসৌরি, বাল্টিমোর ও নিউ ইয়র্কে গত দুই বছরে শেতাঙ্গ পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গদের মৃত্যুর ঘটনা ব্যাপক ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। গুলি করে পুলিশ হত্যার এ ঘটনাকে ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এক ভাষণে বলেন, কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিনিদের হত্যার বিষয়ে সবাইকে সচেতন হতে হবে। ওই সময় তিনি পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার অধিক হারের বিষয়টিও তুলে ধরেন।

সর্বশেষ ক্যাস্টিলকে হত্যা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এ বছর এখন পর্যন্ত পুলিশের গুলিতে ৫০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, যাদের মধ্যে ১২৩ জন কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *