তথ্যপ্রযুক্তিবিদ তানভীর হাসান জোহা অপহৃত
জাতীয়

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ তানভীর হাসান জোহা অপহৃত

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ তানভীর হাসান জোহা অপহৃতসাইবার সিকিউরিটি স্পেশালিস্ট তানভীর হাসান জোহাকে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের ডলার চুরির বিষয়ে তদন্তে সংশ্লিষ্ট ছিলেন।

গতকাল বুধবার দিনগত রাত ১টার দিকে রাজধানীর কচুক্ষেত এলাকা তাকে অপহরণ করা হয় বলে পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন।

বুধবার অফিস থেকে বাসায় ফেরার সময় রাত ১২টার দিকে স্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা হয় তার।

অফিস থেকে বের হওয়ার পর সিএনজিতে ওঠেন জোহা। কচুক্ষেত এলাকায় দুই-তিনটি গাড়ি তার সিএনজিকে ঘিরে ধরে। এরপরই অপহৃত হন তিনি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর কলাবাগানের বাসায় সাংবাদিকদের কাছে স্বামী তথ্যপ্রযুক্তিবিদ তানভীর হাসান জোহার সন্ধানের দাবি জানান স্ত্রী ডা. কামরুন নাহার।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে জোহার চাচা মাহবুবুল আলম সাধারণ ডায়েরি করতে কাফরুল থানায় যান। কাফরুল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তাদের জানান, এটি ক্যান্টনমেন্ট থানা এলাকায় পড়েছে। সেখান থেকে ক্যান্টমেন্ট থানায় যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, ঘটনাস্থল ভাষানটেক থানায় পড়েছে। পরে ওই থানায়ও যোগাযোগ করেন মাহবুবুল আলম। সেখান থেকেও বলা হয় ঘটনাস্থল তাদের এলাকায় পড়েনি। তার প্রশ্ন, তাহলে ঘটনাস্থল কোথায় পড়েছে? হতাশ হয়ে দুপুরে কলাবাগানের বাসায় ফিরে আসেন মাহবুবুল আলম।

কিছুদিন আগে জোহা বলেছিলেন, তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। তদন্ত সহায়তা থেকে আমাকে সরিয়ে দিতে চাইছে। কারণ আমি অনেক বিষয়েই প্রশ্ন তুলেছি। তথ্যের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছি।

এছাড়া রিজার্ভ কেলেঙ্কারি তদন্তে ভারতীয় বিশেষজ্ঞ রাকেশ আস্থানার দেওয়া অনেক বিভ্রান্তিকর তথ্যের সঙ্গেও দ্বিমত পোষণ করেছিলেন জোহা।

একটি সূত্র জানায়, জোহার সঙ্গে প্রথম থেকেই তথ্য ও উপাত্ত নিয়ে অমিল হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের আইটি কনসালটেন্ট রাকেশ আস্থানার সঙ্গে। এসময় জোহার অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি রাকেশ আস্থানা।

গত ১৪ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংকে রক্ষিত বাংলাদেশের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় গণমাধ্যমে ‘বিশেষজ্ঞ’ অভিমত দেওয়া তানভীর হাসান জোহার সংশ্লিষ্টতার কথা নাকচ করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। এতে বলা হয়েছে, বিভাগের সাইবার সিকিউরিটি স্পেশালিস্ট বা সাইবার সিকিউরিটি ফোকাল পয়েন্ট বা সাইবার নিরাপত্তা বিভাগের ডাইরেক্টর (অপারেশন) হিসেবেও তিনি কর্মরত নন। বিভাগের সাইবার সিকিউরিটি স্পেশালিস্ট বা সাইবার সিকিউরিটি ফোকাল পয়েন্ট বা সাইবার নিরাপত্তা বিভাগের ডাইরেক্টর (অপারেশন) হিসেবেও তিনি কর্মরত নন।

পরদিন গণমাধ্যমকে জোহা বলেছেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ চুরি নিয়ে প্রকৃত তথ্য সংবাদ মাধ্যমের কাছে প্রকাশ করায় একটি মহল আমার ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছে। তাই তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। তারা তদন্ত সহায়তা থেকে আমাকে সরিয়ে দিতে চাইছে। কারণ আমি অনেক বিষয়েই প্রশ্ন তুলেছি। তথ্যর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘এর আগে সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার আমন্ত্রণে আমি জঙ্গি তৎপরতাসহ সাইবার অপরাধের বড় বড় ঘটনা তদন্তে সহায়তা করেছি। তখন কোনও প্রশ্ন ওঠেনি। এখন একটি মহলের স্বার্থে আঘাত লাগায় তারা আমার বিরুদ্ধে লেগেছে।’

উল্লেখ্য, তানভির হাসান জোহা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রণালয়ের সাইবার নিরাপত্তা বিভাগের ডিরেক্টর (অপারেশন)। তবে এই প্রকল্পটি গত দুই মাস ধরে স্থগিত আছে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *