জেনে নিন জুতার ইতিহাস

জেনে নিন জুতার ইতিহাস

19
0
SHARE

জেনে নিন জুতার ইতিহাসবর্তমান সভ্যতায় মানুষের ব্যবহার্য উপাদানের মধ্যে জুতা অন্যতম। শহরাঞ্চলে জুতা ছাড়া এক মুহূর্তও কল্পনা করা যায়। বয়স-লিঙ্গ-দেশ-কাল ভেদে জুতার রয়েছে বাহারি ডিজাইন। পা’কে ক্ষতবিক্ষত ও নোংরা থেকে দূরে রাখার জন্যই ব্যবহার করা হয় জুতার। মহাদেশগুলোর মধ্যে এশিয়া এবং আফ্রিকাতেই স্যান্ডেলের ব্যবহার বেশি হলেও অন্যান্য মহাদেশগুলোতে স্যান্ডেলের ব্যবহার তুলনামূলক কম। বেশিরভাগ অঞ্চলেই চামড়ায় মোড়া জুতাই বেশি ব্যবহৃত হয়। কিন্তু ঠিক কবে থেকে এই জুতার ব্যবহার শুরু হয়েছে, তা জানতে গেলে আমাদের অনেকটা পেছনে তাকাতে হবে।

সবচেয়ে প্রাচীন স্পেনের গুহায় আমরা ১৫০০০ বছর আগের কিছু গুহাচিত্র দেখতে পাই। সেই গুহাচিত্রে দেখা যায় আদিম মানুষদের পায়ে পশুর চামড়া জড়ানো ছিল। এছাড়াও ৫০০০ বছর আগে বরফ যুগের সময়ে তৎকালীন মানুষেরা খড়যুক্ত চামড়ায় মোড়া জুতা পরিধান করতো বলে জানা যায়। এছাড়া, এশিয়াতে এযাবৎ যত চিত্রকর্ম দেখা যায়, তাতে এশিয়ায় যে কাঠের জুতার প্রচলন ছিল তা জানা যায়। এমনকি জাপানের প্রাচীন মিথ সাহিত্যেও কাঠের জুতার ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। বর্তমান জুতাকে এই অবস্থায় আসতে দীর্ঘ বিবর্তনের ভেতর দিয়ে যেতে হয়েছে এটা অনস্বীকার্য। এমনও ইতিহাস আছে যে, ইউরোপের কিছু অঞ্চলে জুতা ছিল স্রেফ রাজাদের পরিধানযোগ্য। কোনো প্রজা যদি জুতা পরিধান করতো তাহলে তাকে রাজার আদেশে হত্যা পর্যন্ত করা হতো। এশিয়াতেও একই ঘটনা আমরা দেখতে পাই ভিন্ন দৃষ্টিতে। এশিয়াতে রাজন্যবর্গের রাস্তায় জনসাধারণের জুতা পায়ে হাটাও নিষিদ্ধ ছিল।

বর্তমানে আমরা জুতার মধ্যে হাইহিল জুতা প্রায়শই দেখতে পাই। হাইহিল জুতার প্রচলন শুরু হয় প্রথম ফ্রান্সে। তৎকালীন ষোড়শ লুই প্রথম হাইহিল জুতার প্রচলন করেন। সেসময় ফরাসি রাজপরিবার রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে জনসাধারণের হাইহিল জুতা পরিধানের উপর নিশেধাজ্ঞা জারি করেছিল। এমনকি ফ্রান্সের ইতিহাস থেকে জানা যায়, হইহিল জুতা নিয়ে ফ্রান্সে ছোটো-খাটো বেশ কয়েকটি যুদ্ধ হয়েছিল এবং সেই যুদ্ধগুলোতে বিপুল সংখ্যক মানুষ নিহত হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে লন্ডনের কিছু ব্যবসায়ি ফ্রান্সের হাইহিল জুতার অনুকরণে জুতা প্রস্তুত শুরু করে এবং লন্ডনের রাজপরিবারেও সমান জনপ্রিয় হয় সেই জুতা। প্রায় একশ বছরেরও বেশি সময় হাইহিল জুতা ছিল জনসাধারণের জন্য নিষিদ্ধ।

তবে ইতিহাস বলে, স্যান্ডেলের ব্যবহার সর্বপ্রথম শুরু করে মিসর। মিসরের ফারাও রাজারা স্যান্ডেল পরিধান করে রাজকার্য পরিচালনা করতেন। এবং রাষ্ট্রে ফারাও ব্যাতীত অন্য কেউ স্যান্ডেল পরিধান করতে পারতো না। মিসরের সমাজে স্যান্ডেলকে সম্মানীয়ের পরিধানযোগ্য উপাদান হিসেবে গণ্য করা হতো। ওদিকে উত্তর আমেরিকার ইন্ডিয়ান জাতিগোষ্ঠি নিজেদের প্রয়োজনেই ঠান্ডা থেকে বাঁচার জন্য একপ্রকার জুতা তৈরি করে নিয়েছিল যাকে মোকাসিন নাম দেয়া হয় পরবর্তী সময়ে। তবে ইন্ডিয়ানরা শুধু ঠান্ডা থেকে বাঁচার জন্যই নয়, চারিত্রিক দৃঢ়তা বোঝানোর জন্যও বিভিন্ন রংয়ে আঁকা জুতা পরিধান করতেন। ইন্ডিয়ানদের উপর যারা তৎকালীন সময়ে আগ্রাসন চালিয়েছিল সেই আগ্রাসনকারীরাই নিজেদের প্রয়োজনে মোকাসিন জুতাকে নিজেদের জুতা বলে দাবি করে। ইউরোপে রানী এলিজাবেথের সময়ে আইন করা হয়েছিল যে কেউ যদি জুতা বানাতে চায় তাহলে তাকে অবশ্যেই ৫১/২ ইঞ্চি জুতা তৈরি করতে হবে। এই দৈর্ঘ্য প্রস্থের বাইরে জুতা তৈরির অধিকার একমাত্র রাজপরিবারেরই ছিল।

১৮৫০ সালের আগ পর্যন্ত জুতা আমদানি বা রপ্তানি করা হতো না। সেসময় ১৬৬৫-৭০ সালের মধ্যে নির্মিত ‘অক্সফোর্ড স্যু’ বিশ্বের অনেক দেশেই রপ্তানি করতে শুরু করে লন্ডন। একই সময়ে ১৪৯০ সালে জার্মানিদের তৈরিকৃত ‘ভাল্লুকের থাবা’ নামে পরিচিত জুতাও রপ্তানি শুরু হয়। যুক্তরাষ্ট্র সরকার ১৮৪৫ সালে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে জুতা তৈরির কারখানা স্থাপন করে। এই সময়ই প্রথম যন্ত্র দ্বারা জুতা তৈরি করা হয়। আর এই যন্ত্রের আবিষ্কার করেন এলিস হাও। অবশ্য ১৮৫৮ সালে লেম্যান আর. ব্লেক নামের অপর এক ইংলিশ ম্যান জুতা বানানোর আধুনিক যন্ত্র তৈরি করেন। যদিও গর্ডন ম্যাককে নামক এক ব্যাক্তি লেম্যানের যন্ত্রের পেটেন্ট কিনে নেন। এই গর্ডনের প্রতিষ্ঠিত জুতা কোম্পানিই যুক্তরাষ্ট্রের গৃহযুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীর জুতা তৈরি করে। যুদ্ধ পরবর্তীতে এই কোম্পানিটি জনসাধারণের জন্য জুতা তৈরি শুরু করে।

১৮০০ সালের আগে পর্যন্ত ইউরোপে নারী-পুরুষের জন্য আলাদা কোনো জুতা ছিল না। একই ডিজাইন এবং দৈর্ঘ্যের জুতা সবাইকে পরিধান করতে হতো। কিন্তু ১৮০০ সাল পরবর্তীতে জুতার উপরিতলের অংশে চামড়ার বদলে সিল্কের কাপড় ব্যবহার করে নারীদের জন্য পৃথক জুতা তৈরি করা হয়। সিল্কের ব্যবহারের পর জার্মানি, ফ্রান্স এবং ইংল্যান্ডও সিল্কের জুতা তৈরি করতে শুরু করে। এক্ষেত্রে বেলজিয়াম অনেকটাই অগ্রগামী ভূমিকা পালন করে। তারা নারীদের জন্য তৈরিকৃত জুতায় সিল্কের উপর বিভিন্ন নকশা করতে শুরু করে, যা সেই যুগের এবং সময়ের সাংস্কৃতিক চর্চার ধারাবাহিকতা ধারন করতো।

Comments

comments