জাপানি নাগরিক হত্যার বিচার চাইলেন বার্নিকাট
জাতীয়

জাপানি নাগরিক হত্যার বিচার চাইলেন বার্নিকাট

জাপানি নাগরিক হত্যার বিচার চাইলেন বার্নিকাটরংপুরের মাহীগঞ্জ এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে এক জাপানি নাগরিক নিহত হওয়ার ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট। একই সঙ্গে তিনি হত্যাকারীদের দ্রুত খুঁজে বের করে বিচারের মুখোমুখি করার আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের ফেসবুক পেজে এক বার্তায় বার্নিকাট বলেন, “রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি খুনের ঘটনায় আমি গভীরভাবে মর্মাহত। আমি হোশির পরিবার, বন্ধু ও জাপানের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। একই সঙ্গে আমি এই অপরাধের প্রতিটি বিষয় তদন্ত করে যত দ্রুত সম্ভব হত্যাকারীদের বিচারের মুখোমুখি করার জন্য বাংলাদেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”

শনিবার সকাল ১০টার দিকে রংপুর সদরের মাহীগঞ্জ এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে ওই জাপানি নাগরিক নিহত হন। তার নাম হোসি কমিও। তিনি রংপুরের একটি কৃষি প্রকল্পে কর্মরত ছিলেন।

এদিকে খুনের ঘটনায় বাড়ির মালিক, ব্যবসায়িক অংশীদার, রিকশা ওয়ালাসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নাল আবেদীন জানান, এ ঘটনায় পুলিশ কোনিওর বাড়ির মালিক জাকারিয়া বালা, কোনিওর ব্যবসায়িক বন্ধু হীরা, ঘটনাস্থলের পাশের বাড়ির মালিক মুরাদ ও রিকশাচালক মোন্নাফকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

‘দুই হত্যা এক ধরনের, একই উদ্দেশ্য’

রংপুর জেলার কাউনিয়া থানায় অজ্ঞাত বন্দুকধারীদের গুলিতে এক জাপানি নাগরিক নিহত হবার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলছেন, “এক সপ্তাহে যে দুটি আক্রমণে দু’জন বিদেশী নাগরিক নিহত হয়েছেন – এই হত্যাকাণ্ডগুলো একই ধরনের এবং একই উদ্দেশ্যে তা ঘটানো হয়ে থাকতে পারে।”

পুলিশ বলছে, শনিবার সকাল ১১টার দিকে রংপুরের কাউনিয়ার আলুটারি এলাকায় আনুমানিক ৫০ বছর বয়স্ক জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও গুলিবিদ্ধ হবার পর মৃত্যুবরণ করেন। এর কয়েকদিন আগেই রাজধানী ঢাকার গুলশান এলাকায় একজন ইতালীয় নাগরিককে গুলি করে হত্যা করা হয়।

উভয় ক্ষেত্রেই বন্দুকধারীরা অপেক্ষমান একটি মোটরবাইকে করে পালিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বিবিসিকে বলেন, “ঘটনাগুলো একই ধরনের। উভয় ক্ষেত্রেই পিছন থেকে গুলি করা হয়েছে, অস্ত্র ছিল পিস্তল। দুটি ঘটনাতেই আক্রমণকারীরা ছিল তিনজন এবং তারা একইভাবে মোটরবাইকে করে পালিয়ে যায়। কিছু আলামত আমরা পেয়েছি এবং আসল অপরাধীদেরও আমরা শিগগীরই ধরে ফেলবো।”

তিনি বলেন, “আমরা কয়েকদিন পরে আরো খোলাসা করে বলতে পারবো, তবে প্রাথমিকভাবে যেটুকু বুঝতে পারছি – তাতে মনে হচ্ছে বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য এবং বিদেশীদের কাছে দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল বলে তুলে ধরার জন্য এগুলো করা হচ্ছে।”

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে অব্স্থানরত বিদেশীদের তারা আশ্বস্ত করতে চান যে অচিরেই প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করা হবে। “আগে যেরকম সন্ত্রাস করেছিল সেইরকম একটা প্রয়াস তারা নিচ্ছে – আমরা একে উদ্ঘাটন করে প্রকৃত অপরাধীদের ধরে ফেলবো।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “কূটনৈতিক এলাকা সহ শহরগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে, এবং সেখানে তল্লাশি অভিযান চালানো হবে।”

তিনি আশা প্রকাশ করেন যে বাংলাদেশে বিদেশীরা অচিরেই নির্ভয়ে কাজ করতে পারবেন। “যেখানেই বিদেশীরা আছেন সেখানে নিরাপত্তা বাহিণরি নজরদারি বাড়ানো হচ্ছে। কোন বিদেশী নিরাপত্তার অভাব বোধ করলে আমাদের জানালে আমরা নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবো।”

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *