আজ ৭ নভেম্বর। ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিপ্লবের দিন।
জাতীয়

জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস আজ

আজ ৭ নভেম্বর। ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিপ্লবের দিন।আজ ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর। জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিপ্লবের দিন। আজ থেকে ৩৯ বছর আগের সেই অবিস্মরণীয় বিপ্লবের মহানায়ক ছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সিপাহী-জনতার মিলিত বিপ্লবে নস্যাত্‌ হয়ে যায় প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ববিরোধী ষড়যন্ত্র। আধিপত্যবাদী ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তির আগ্রাসন থেকে রক্ষা পায় বাংলাদেশ। এদিন সিপাহী-জনতা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঢাকা সেনানিবাসের বন্দীদশা থেকে মুক্ত করে আনেন তত্‌কালীন সেনাপ্রধান ও স্বাধীনতার ঘোষক মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে। জাতীয় ইতিহাসের এই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের বাণী : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দিবসটি উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে বলেন, ৭ নভেম্বর জাতীয় জীবনের এক ঐতিহাসিক দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সৈনিক-জনতা রাজপথে নেমে এসেছিল জাতীয় স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র রার দৃঢ় প্রত্যয় বুকে নিয়ে।

তিনি বলেন, ভোটারবিহীন এই শিখণ্ডি সরকার জবরদস্তি করে মতা দখল করে বসে আছে। তারা গণতন্ত্রের পে লড়াকু নেতাকর্মীদের বীভৎস নির্মমতায় দমন করছে, বিরোধী দলের গণতান্ত্রিক অধিকারগুলোকে নির্দয় ফ্যাসিবাদী শাসনের যাঁতাকলে পৈশাচিকভাবে পিষ্ট করছে। এই জবরদখলকারী শিখণ্ডি সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্ব দিনের পর দিন ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে পড়ছে।

খালেদা জিয়া বলেন, ভোটারবিহীন সরকারের নতজানু নীতির কারণেই আমাদের আবহমানকালের কৃষ্টি, ঐতিহ্য, ভাষা ও সংস্কৃতির ওপর চলছে বাধাহীন আগ্রাসন। তাই আমি মনে করি ৭ নভেম্বরের চেতনায় সব জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রের অন্যতম শর্ত মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা এবং আধিপত্যবাদী আগ্রাসন প্রতিরোধ করে জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রা করা এই মুহূর্তে অত্যন্ত জরুরি।

এদিকে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে যুক্তরাজ্য বিএনপির উদ্যোগে বুধবার লন্ডনে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ঘটনাবহুল ৭ নভেম্বরের বিভিন্ন বিস্তারিত দিক তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

পৃথক এক বাণীতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ১৯৭৫ সালে আমরা স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রায় ঐক্যবদ্ধ হয়েছিলাম, সেই একই চেতনাকে বুকে ধারণ করে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও দেশের স্বাধীনতা রায় আবার সুদৃঢ় জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

কর্মসূচি : দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিলসহ বিস্তারিত কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে।

বিএনপির কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ৬টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন, ১০টায় খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও ফাতেহা পাঠ, পোস্টার ও ক্রোড়পত্র প্রকাশ। এ ছাড়া আগামীকাল রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হবে সমাবেশ। একই সাথে দলের সব জেলা, উপজেলা ও সব ইউনিট স্থানীয়ভাবে দিবসটি পালন করছে।

চট্টগ্রাম : এ দিকে দিবসটি উপলে বিএনপি চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে ব্যাপক কর্মসূিচ নেয়া হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ সকাল ৮টায় নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয় থেকে রাঙ্‌গুনীয়ার শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের প্রথম কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধাঞ্জলি, সকাল ১০টায় বিপ্লব উদ্যানে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভার কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে

সিলেট: সিলেটে বর্ণাঢ্য এক র‌্যালির মাধ্যমে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপন করবে সিলেট মহানগর মুক্তিযোদ্ধা দল।

এ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে নানা আয়োজনে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপন করবে বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *