জঙ্গিবিমানের ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার, পাইলট নিখোঁজ

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে বিমান বাহিনীর এফ-৭ নামের একটি যুদ্ধ বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর বিমানের দুটি ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করা গেছে।

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে বিমান বাহিনীর এফ-৭ নামের একটি যুদ্ধ বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর বিমানের দুটি ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করা গেছে।চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে বিমান বাহিনীর এফ-৭ নামের একটি যুদ্ধ বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর বিমানের দুটি ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করা গেছে। তবে বিমানের পাইলট ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট তাহমিদ এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

সোমবার বিকেল ৩টায় সাগর থেকে বিধ্বস্ত বিমানের কয়েকটি টুকরো উদ্ধার করা হয়। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত তার কোনো খোঁজ মেলেনি।

নিখোঁজ পাইলট তাহমিদের বাড়ি চট্টগ্রামের আনোয়ারায়। চার ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার বড়।

কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন শহীদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিধ্বস্ত হওয়া বিমানটির ইঞ্জিন সনাক্ত করা গেছে। আমাদের উদ্ধারকারী জাহাজ ‘সিজিএস তৌফিক’ বিমানের ভাঙা দুটি অংশ উদ্ধার করেছে। তবে বিমানের পাইলট ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট তাহমিদ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছেন।’

ঘটনাস্থলে থাকা কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের লে কমান্ডার দুরুল হুদা বলেন, ‘কোস্টগার্ডের উদ্ধারকারী জাহাজ সিজিএস তৌফিক, তিনটি মেটাল শার্ক স্পিড বোট, নৌ বাহিনীর ৩টি যুদ্ধ জাহাজ (অতন্দ্র, মধুমতি ও সুরভী) উদ্ধার কাজে যোগ দেয়। যুদ্ধ জাহাজের সাইড স্ক্যান সোনার দিয়ে সাগরের তলদেশে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। এছাড়া বিমান বাহিনীর তিনটি হেলিকপ্টার ও বন্দরের একটি অ্যাম্বুলেন্সশীপ ঘটনাস্থলে আছে।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী লাইটার জাহাজ ‘এমভি আলেকজান্ডার’ এর ওয়াচম্যান বাবুল জানান, ‘সকাল ১১টার দিকে বহির্নোঙ্গরের ব্র্যাভো অ্যাংকারেজ এলাকায় লাইটার জাহাজে ওয়াচম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন করছিলাম। এসময় আমি ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিমান বন্দরে বিমান উঠানামা নিয়ে সহকর্মীদের সাথে মজা করছিলাম।’

‘সকাল ১১টা ১৫ মিনিট নাগাদ একটি যুদ্ধ বিমান সাগরের দিকে দ্রুত গতিতে আসতে দেখে সেদিকে চোখ রাখতে দেখি সেটি সাগরে নিক্ষিপ্ত হয়। এরপর ৩০ সেকেন্ড সময়ের মধ্যে বিধ্বস্ত বিমান থেকে একজন সাগরে পড়ার পর হাত নেড়ে সাহায্যের আবেদন জানান। ঘটনাস্থল থেকে আমাদের জাহাজের দুরত্ব ছিল ৫০০ মিটারের মত। কিন্তু আমাদের কাছে ছোট স্পিড বোট না থাকায় তাকে উদ্ধার করতে পারিনি।’

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা স্থলসীমা থেকে ৮ মাইল দূরে সাগরে প্রশিক্ষণ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে শুধু পাইলট তাহমিদই ছিলেন।

বিমান বাহিনী জানায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিমান বাহিনীর জহুরুল হক ঘাঁটি থেকে জঙ্গি বিমানটি উড্ডয়ন করে। বেলা ১১টার দিকে কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। পরে বেলা ১১টার দিকে বিধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *