ছাত্রলীগের সভাপতি সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক জাকির

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সাইফুর রহমান সোহাগ। আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জাকির হোসেন।

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সাইফুর রহমান সোহাগ। আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জাকির হোসেন।আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সাইফুর রহমান সোহাগ। আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জাকির হোসেন।

দুইজনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের শিক্ষার্থী ও হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

সোহাগ ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের ২০০৫-০৬ শিক্ষাবর্ষের এবং জাকির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০০৭-০৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। সোহাগের বাড়ি মাদারীপুর ও জাকিরের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলায়।

রোববার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে দিনভর ভোট গ্রহণের পর গণনা শেষে রাতে ফল ঘোষণা করেন কাউন্সিলের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুমন কুণ্ডু।

সংগঠনটির সারা দেশের ১১১টি ইউনিটের প্রায় তিন হাজার কাউন্সিলরের প্রত্যক্ষ ভোটে দুই বছরের জন্য এই নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়েছেন। বিদায়ী কমিটির পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক সাইফুর রহমান সোহাগ সভাপতি পদে ২৬৯০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে বিদায়ী কমিটির সহ-সম্পাদক জাকির হোসেন পেয়েছেন ২৬৭৫ ভোট।

নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের এই ভোটের লড়াইয়ে সভাপতি পদে ১০ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ১৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তিন হাজার ১৩৮ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ভোট দিয়েছেন দুই হাজার ৮১৯ জন, অর্থাৎ ৮৯.৮৩ শতাংশ কাউন্সিলর তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

এর আগে রোববার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে ছাত্রলীগের দ্বিতীয় দিনের কাউন্সিলে ভোট নেয়া হয়।

দেশের পুরাতন ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের ২৮তম সম্মেলন শনিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে কাউন্সিলরদের (ভোটার) প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে তিনি পরবর্তী নেতা হওয়ার যোগ্যতা হিসেবে কিছু মাপকাঠি ঠিক করে দেন।

এরপর নির্বাচনের প্রক্রিয়া কেমন হবে, এ নিয়ে শনিবার বিকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে সাবেক শীর্ষ নেতারা বৈঠক করেন।

এরই আলোকে রোববার সকালে সব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীর সঙ্গে আলোচনা করেন বিদায়ী সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম, সম্মেলনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুমন কুন্ডু, নির্বাচন কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক ও শেখ রাসেল।

আলোচনার পরই সভাপতি পদে ৬৪ জন প্রার্থীর মধ্যে ৫৪ জন তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। সাধারণ সম্পাদক পদে ১৪৯ জন প্রার্থীর মধ্যে ১৩১ জন প্রত্যাহার করেন। ভোটের লড়াইয়ে সর্বশেষ সভাপতি পদে ১০ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ১৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

ভোট চলাকালে সাইফুর রহমান সোহাগ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ছাত্রলীগকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন।

সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী জাকির হোসেন বলেন, “সময়ের সাহসী সন্তানরা ছাত্রলীগের রাজনীতি করে। সামনের দিনেও যাতে তারা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে আসে, আমি সে চেষ্টা করব।”

গতকাল শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বেলা ১১টার দিকে জাতীয় পতাকা ও পায়রা উড়িয়ে ছাত্রলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় তিনি স্বচ্ছ ব্যালট বক্সে ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব নির্বাচনের নির্দেশ দিয়েছিলেন। ভোটের মাধ্যমে যোগ্য নেতৃত্ব নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ছাত্রলীগ একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। তাই এই সংগঠনের নেতৃত্ব বাছাইয়ের ক্ষেত্রে মেধাবী, পড়াশোনায় মনোযোগী এবং যারা নিয়মিত ছাত্র তাদের নির্বাচিত করতে হবে। এছাড়া সংগঠনের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়, এমন কাজ থেকে বিরত থাকার নির্দেশও দেন তিনি।

রোববার সকাল ১০টায় দ্বিতীয় অধিবেশনের শুরুতেই প্রার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন বর্তমান সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম, সম্মেলনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুমন কুণ্ডু, নির্বাচন কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক ও শেখ রাসেল।

শুরুতে সভাপতি পদে ৬৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতার কথা বললেও ভোট শুরুর আগ পর্যন্ত ৫২ জন তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। আর সধারণ সম্পাদক পদের ১৪৯ প্রার্থীদের মধ্যে ১২১ জনই মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন।

দেশের প্রাচীনতম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী ছাত্রলীগের সর্বশেষ ২৭তম সম্মেলন হয় ২০১১ সালের ১০ ও ১১ জুলাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *