বিনামূল্য প্রশিক্ষণ ও চাকরি দেবে বেসিস

আগামী ৩ বছরে বিনামূল্যে ২৩ হাজার লোককে প্রশিক্ষণ ও তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে বেসিস।

আগামী ৩ বছরে বিনামূল্যে ২৩ হাজার লোককে প্রশিক্ষণ ও তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে বেসিস।আগামী ৩ বছরে বিনামূল্যে ২৩ হাজার লোককে প্রশিক্ষণ ও তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে বেসিস। আর এতে সহায়তা করবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীন স্কিল ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইআইপি) প্রকল্প। আগামী এপ্রিল শুরু হবে এ কার্যক্রম।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ এসব তথ্য জানান সংগঠনের সভাপতি শামীম আহসান।

বেসিস সভাপতি বলেন, বেসিস এর ‘ওয়ান বাংলাদেশ’ ভিশনের অন্যতম পিলার ২০১৮ সাল নাগাদ ১০ লাখ আইটি প্রফেশনালস তৈরির কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। এ ধারাবাহিকতায় এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আগামী ৩ বছরে বিনামূল্যে ২৩ হাজার দক্ষ জনশক্তি তৈরি ও তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে বেসিস।

তিনি জানান, আগামী এপ্রিলে প্রথমে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগে এই প্রকল্প শুরু হবে। তারপর পর্যায়ক্রমে বাকি ৫টি বিভাগীয় শহরে প্রশিক্ষণ শুরু হবে। প্রশিক্ষণের পর তথ্যপ্রযুক্তিসহ বিভিন্ন খাতে প্রথম বছর ৫ হাজার ও পরবর্তী দুই বছরে ৯ হাজার করে চাকরির ব্যবস্থা করা হবে।

শুধু বিনামূল্যে প্রশিক্ষণই নয়, যারা প্রশিক্ষণ নেবে তাদেরকে মাসে ৩ হাজার ১৫০ টাকা করে শিক্ষাবৃত্তি দেওয়া হবে বলেও জানান বেসিস সভাপতি।

প্রশিক্ষণের বিস্তারিত ও আবেদনের পদ্ধতি বেসিস ও বিআইটিএমের ওয়েবসাইটে  জানা যাবে। আবেদনকারীদের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নির্বাচিত করা হবে। এতে ওয়েব ডিজাইন, ক্লাউড ম্যানেজমেন্ট, ইংলিশ ট্রেনিং, বিজনেস কমিউনিকেশনসহ ১২টি কোর্স করানো হবে। প্রশিক্ষণার্থীকে এইচএসসি পাশ হতে হবে। প্রশিক্ষণের মেয়াদ হবে ৩ মাস। তবে একজন প্রশিক্ষণার্থী কেবল একটি বিষয়েই প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন।

এ সময় অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও এসডিসিএমইউ এবং এসইআইপি প্রকল্পের জাতীয় প্রকল্প পরিচালক জালাল আহমেদ বলেন, সরকারের দক্ষ জনশক্তি তৈরি কার্যক্রম একটি চলমান প্রক্রিয়া। বেসিস সফলভাবে এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারলে সংগঠনটিকে আরও নতুন নতুন প্রকল্প দেওয়া হবে।

অর্থ বিভাগের যুগ্ম-সচিব আবদুর রউফ তালুকদার জানান, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে দেশের বিভিন্ন সেক্টরে দক্ষ জনশক্তি তৈরির এ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে সরকারি বরাদ্দ রয়েছে ১৩৮ মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ১ হাজার ৮০ কোটি টাকা। আর প্রকল্পটি সফল হলে এর অর্থের পরিমাণ বাড়িয়ে ১ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা হবে।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিসের সাবেক সভাপতি একেএম ফাহিম মাশরুর, কোষাধ্যক্ষ ও বিআইটিএমের দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিচালক শাহ ইমরাউল কায়ীশ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *