গুলশানের জঙ্গি রোহান আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে
জাতীয়

গুলশানের জঙ্গি রোহান আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে

গুলশানের জঙ্গি রোহান আওয়ামী লীগ নেতার ছেলেগুলশানে জঙ্গি হামলা পরিচালনাকারী ৫ জনের একজন রোহান ইমতিয়াজ আওয়ামী লীগ নেতা ইমতিয়াজ খান বাবুলের পুত্র। রোহান স্কলাসটিকা স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী।

মা ও বাবার সঙ্গে রোহানের একাধিক ছবি ফেসবুকে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে, রোহানের বাবা এস এম ইমতিয়াজ খান বাবুল রাজধানীর ৩১ নং ওয়ার্ডে (মোহাম্মাদপুর) গত বছরের ২৮ এপ্রিল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে অংশ নিয়েছিলেন।

রোহানের বাবা এস এম ইমতিয়াজ খান বাবুল নিজের রাজনৈতিক পরিচয় হিসেবে ৩১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন বলে দাবি করেন তিনি।

ইমতিয়াজ খান বাবুল সর্বশেষ ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের বিদায়ী কমিটির যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক ছিলেন।

এ ছাড়া তিনি বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল, সাইক্লিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও ফিবার রেফারি।

রোহানের মা স্কলাসটিকা স্কুলের শিক্ষিকা। মা-বাবার একমাত্র ছেলে সন্তান রোহানের দুই বোন আছে এবং তারা মোহাম্মদপুরে বসবাস করেন বলে জানা গেছে।

হামলাকারী আরও ৪ জনের পরিচয়

হামলাকারী জঙ্গিদের একজন নিব্রাস ইসলাম নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র। সাবেক সহাপাঠীরা সনাক্ত করে তার ছবি ও পরিচয় সামনে এনেছে। আরেকজন জঙ্গি মীর সাবিহ মুবাশ্বের স্কলাসটিকার ছাত্র। এ লেভেল পরীক্ষার আগে গত মার্চে মুবাশ্বের নিখোঁজ হন। এছাড়া নিহত জঙ্গি রায়হান মিনহাজ ও আন্দালিব আহমেদ মালয়েশিয়ার মোনাশ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাজধানীর গুলশানের ‘হলি আর্টিজান বেকারি’ নামের একটি রেস্তোরায় একদল অস্ত্রধারী জঙ্গি ঢুকে দেশি-বিদেশি অতিথিদের জিম্মি করে। প্রায় ১২ ঘণ্টা পর শনিবার সকালে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে কমান্ডো অভিযানের মধ্য দিয়ে রেস্তোরাঁর নিয়ন্ত্রণ নেয় নিরাপত্তা বাহিনী। এ ঘটনায় ৯ জন ইতালিয়ান, ৭ জন জাপানি, ৩ জন বাংলাদেশি এবং ১ জন ভারতীয় নাগরিক নিহত হন। এছাড়া ২ জন পুলিশ, ৫ জন জঙ্গি ও হোটেলটির সেফসহ নিহতের সংখ্যা দাঁড়ায় ২৮ জন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *