ভারতের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ টেলিফোনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিয়েছেন।
জাতীয়

খালেদা জিয়াকে বিজেপি সভাপতির ফোন

ভারতের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ টেলিফোনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিয়েছেন।ভারতের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ টেলিফোনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিয়েছেন বলে বিএনপির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল বলেছেন, ‘অবরুদ্ধ অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পিপার স্প্রের বিষক্রিয়ায় অসুস্থ দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়েছেন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) প্রেসিডেন্ট শ্রীযুক্ত অমিত শাহ।
গুলশানের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

সোহেল বলেন, ‘গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ১০টায় টেলিফোন করে বিজেপি প্রধান ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) খোঁজ-খবর নেন। তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আশু সুস্থতা কামনা করেন।’

তিনি জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন এই সৌজন্য দেখানোর জন্য ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির শীর্ষনেতাকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি আরও জানান, দেশ-বিদেশের আরও অনেক নেতা টেলিফোনে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নিয়েছেন এবং উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলেও জানান সোহেল।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বছরপূর্তির দিনটিকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট উত্তপ্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে ৩ জানুয়ারি গভীর রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সংখ্যা বাড়ানো হয়। তখন থেকে কার্যত তিনি অবরুদ্ধ ছিলেন। সোমবার সমাবেশে যোগ দিতে কার্যালয় থেকে বের হতে চাইলেও পুলিশ তাকে বের হতে দেয়নি। এ সময় মহিলা দলের কয়েকজন ওই কার্যালয়ের গেট ভাঙার চেষ্টা করলে পুলিশ পিপার স্প্রে করে। পরে তিনি কার্যালয়ের ভেতরে দাঁড়িয়েই গণমাধ্যমে বক্তব্য দেন। এ সময় তাকে কাশতে ও চোখ মুছতে দেখা যায়।

ওইদিনই সন্ধ্যার দিকে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এদিকে, দেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে খালেদা জিয়াকে বিজেপি সভাপতির ফোনকে তাৎপর্যপূর্ণ মনে করা হচ্ছে।

অবশ্য, ভারতের কংগ্রেসের সঙ্গে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ঐতিহ্যগতভাবে সুসম্পর্ক রয়েছে। তবে কংগ্রেসের প্রতিপক্ষ বিজেপির সঙ্গে দলটির সম্পর্ক নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ নেতাদের দাবি, কংগ্রেসের মতো বিজেপিও তাদের ‘কট্টর’ সমর্থক।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন— বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, উপদেষ্টা আব্দুল কাইয়ুম, বিশেষ সহকারী শামছুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সহকারী মাহবুব আল আমিন ডিউ, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, মহিলা নেত্রী বিলকিস জাহান শিরিন, বিলকিস ইসলাম, মির্জা ফারজানা রহমান হোসেনা, আয়েশা সিদ্দিকা মনি, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার ও শায়রুল কবির খান।

 

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *