পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দুই ম্যাচ হাতে রেখেই জিতে নিল বাংলাদেশ। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সফরকারীদের ১২৪ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা।
খেলা

ওয়ানডে সিরিজ বাংলাদেশের

পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দুই ম্যাচ হাতে রেখেই জিতে নিল বাংলাদেশ। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সফরকারীদের ১২৪ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা।পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দুই ম্যাচ হাতে রেখেই জিতে নিল বাংলাদেশ। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সফরকারীদের ১২৪ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। সিরিজ নিশ্চিতের পর এবার হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্যে থাকবে টাইগাররা।

টসে হেরে প্রথম ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৯৭ রান করে বাংলাদেশ। জবাবে ১০.১ ওভার বাকি থাকতে ১৭৩ রানে শেষ হয় জিম্বাবুয়ের ইনিংস।

জিম্বাবুয়ে ইনিংসে শুরুতেই আঘাত হানেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। ৯ রান করে টাইগার দলনায়কের প্রথম শিকার হন ভুসি সিবান্দা। তুলে মারতে গিয়ে আরাফাত সানির হাতে ধরা পড়েন তিনি। আর ১১ রান করে মাশরাফির বলেই মুশফিকের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হন মাসাকাদজা।

অধিনায়কের পর সফরকারী ইনিংসে আঘাত হানেন রুবেল হোসেন। তবে জিম্বাবুয়ের তৃতীয় উইকেট পতনেও ভূমিকা আছে মাশরাফির। রুবেলের বল উঁচু করে মারতে গিয়ে মাশরাফির হাতে ধরা পড়েন মারুমা।

বাংলাদেশের বোলারদের দাপটে কোণঠাসা হয়ে পড়ে জিম্বাবুয়ে। ৯০ রানের মধ্যেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা।

জিম্বাবুয়েকে টেনে তোলার কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন ব্রেন্ডন টেলর ও এলটন চিগুম্বরা। কিন্তু ২৮ রান করে সাকিব আল হাসানের এলবিডব্লিউর শিকার হন টেলর। এরপরও দাঁত কামড়ে ক্রিজে ছিলেন চিগুম্বরা। তবে অপর প্রান্ত থেকে যোগ্য সমর্থনের অভাবে দলের একমাত্র অর্ধশতক(৫৩) করে  অপরাজিত থেকেও হার ঠেকাতে পারেননি তিনি।

বাংলাদেশের হয়ে স্পিনার আরাফাত সানি নেন ৪টি উইকেট। এছাড়া দুটি করে উইকেট নেন মাশরাফি ও রুবেল হোসেন।

এরআগে ইনিংসের শুরুটা দুর্দান্ত হয়েছিল বাংলাদেশের। উদ্বোধনী জুটিতে ১২১ রান তোলেন তামিম ইকবাল ও আনামুল হক বিজয়। তবে দারুণ শুরুর পর দুর্ভাগ্যজনক রানআউট হন তামিম ইকবাল। আউট হওয়ার আগে তিনি করেছেন ৬৩ বলে দুই চার এক ছক্কায় ৪০ রান। এরপর দলীয় ১৬০ রানে মুমিনুল হক (১৫) মাসাকাদজার বলে মারুমার তালুবন্দি হন।

তামিম-মমিনুলের পর পাঁচ রানের আক্ষেপ নিয়ে সাজঘরে ফেরেন আনামুল হক। ৯৫ রান করে আউট হয়েছেন তিনি। দলীয় ১৬৭ রানে সময় উড়িয়ে মারতে গিয়ে সিংগি মাসাকাদজার হাতে ধরা পড়েন বিজয়। সেই সাথে হাতছাড়া হয় ক্যারিয়ারের চতুর্থ শতক।

বিজয় ফিরে যাওয়ার পর জুটি বাঁধেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। ৩৩ বলে ৪০ রান করে পানিঙ্গাগার বলে চিগুম্বরার হাতে ধরা পড়েন সাকিব। ২২ বলে ৩৩ রানের ছোট একটা ঝোড়ো ইনিংস খেলেছেন মুশফিকও। ২৬ বলে ৩৩ রানের আরও একটা ইনিংস খেলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। আর ক্যারিয়ারের তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ১৩ বলে ২২ রানের ইনিংস খেলে বাংলাদেশের স্কোরটা তিনশ’র কাছাকাছি নিয়ে যান সাব্বির রহমান ।

সফরকারীদের হয়ে পানিঙ্গারা নিয়েছেন দুটি উইকেট।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *