ইউনাইটেড পাওয়ারের লেনদেন শুরু আগামীকাল

ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ইউপিজিডিসিএল) লেনদেন আগামীকাল রোববার শুরু হবে।

ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ইউপিজিডিসিএল) লেনদেন আগামীকাল রোববার শুরু হবে।ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ইউপিজিডিসিএল) লেনদেন আগামীকাল রোববার শুরু হবে।

পুঁজিবাজারে কোম্পানিটি ‘এন’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন শুরু করবে। ডিএসইতে ইউনাইটেড পাওয়ারের ট্রেডিং কোড হবে UPGDCL((ইউপিজিডিসিএল)। আর কোম্পানি কোড নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫৩১৮।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) কোম্পানির স্ক্রীপ কোড হবে UPGDCL((ইউপিজিডিসিএল)। এই কোম্পানির স্ক্রীপ আইডি নির্ধারণ করা হয়েছে ২০০১৮ ।

এর আগে ডিএসই’র পরিচালনা পর্ষদ কোম্পানিটিকে তালিকাভুক্তির অনুমোদন দেয়। পরে কোম্পানিটি সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিডিবিএল) শেয়ার দেয়। এরপর সিডিবিএল বিনিয়োগকারীদের হিসাবে শেয়ার পাঠান। গত ২৯ মার্চ বিনিয়োগকারীদের বিওতে শেয়ার দেওয়া সম্পন্ন করে।

ইউপিজিডিসিএলের আইপিওতে ৮৩৭ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে। এটি কোম্পানির চাহিদার তুলনায় প্রায় ৫ দশমিক ৮৭ গুণ। এর পরিপ্রক্ষিতে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি কোম্পানিটির আইপিও’র লটারি অনুষ্ঠিত হয়।

গত ১৮ জানুয়ারি বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী এ কোম্পানির আইপিও আবেদন জমা নেওয়া শুরু হয়। চলে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত।

সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে (ব্যক্তি বিনিয়োগকারী, ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী, অনিবাসী বাংলাদেশী ও মিউচুয়াল ফান্ড) ইস্যু করা হবে ১ কোটি ৯৮ লাখ শেয়ার; যার লট সংখ্যা ১ লাখ ৯৮ হাজারটি। অফার প্রাইস অনুসারে এর মূল্য দাঁড়ায় ১৪২ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৩১তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ইউনাইটেড পাওয়ারকে ২০১৪ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি বিডিংয়ের অনুমোদন দেয় কমিশন।

ওই সময় প্রতিটি শেয়ারের নির্দেশক মূল্য ৬০ টাকা নির্ধারিত হয়। ৬টা ক্যাটাগরির মাধ্যমে ২৮টি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী দ্বারা সমর্থন হয়। পরবর্তীতে ২৮ জন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী বিডিংয়ে অংশগ্রহণের মাধ্যমে ৭২ টাকা নির্দেশক মূল্য নির্ধারিত হয়েছে।

২০১৪ সালের জুন শেষ হওয়া অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রতি শেয়ারে আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৯৮ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ২৩ টাকা ৬৪ পয়সা ।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে লংকা বাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর ইস্যুটির রেজিস্টার হিসেবে কাজ করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *