২০১৫ বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪ উইকেটে হারিয়ে চমক দেখাল আয়ারল্যান্ড।
খেলা

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে আয়ারল্যান্ডের চমক

২০১৫ বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪ উইকেটে হারিয়ে চমক দেখাল আয়ারল্যান্ড।২০১৫ বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪ উইকেটে হারিয়ে চমক দেখাল আয়ারল্যান্ড।

টুর্নামেন্টের তৃতীয় দিনে প্রথম অঘটনের মুখ দেখল ২০১৫ বিশ্বকাপ। নিউজিল্যান্ডের নেলসনে আয়ারল্যান্ড ৪ উইকেটে হারাল ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। ‘বড় মাছ’ শিকারের অভ্যাসটা আইরিশদের মধ্যে অতীতেও ছিল। ২০০৭ বিশ্বকাপে পাকিস্তান ও বাংলাদেশকে হারিয়েছিল আয়ারল্যান্ড। এই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচেও বাংলাদেশকে হারিয়েছে আইসিসি সহযোগী দেশটি।

প্রথমে ব্যাট করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে ৩০৪ রান করে। জবাবে ৪৫.৫ ওভারে ৬ উইকেটে ৩০৭ রান করে ম্যাচ জিতে নেয়। আয়ারল্যান্ড এবার বিশ্বকাপে গত চার ম্যাচে বড় দলগুলো ৩০০ রান তাড়া করতে গিয়ে হোঁচট খেয়েছে। কিন্তু ৩০০ রানের বেশি করে দেখাল আয়ারল্যান্ড। ম্যাচ সেরা হন পল স্টারলিং

৩০৫ রানের টার্গেটটা বেশ সাহসিকতার সঙ্গেই পাড়ি দিয়েছে আইরিশরা। ৭১ রানের ওপেনিং জুটিতে তাদের শুরুটাও ভালো ছিল। অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড ২৩ রান করে  আউট হলেও পল স্টারলিং টিকে ছিলেন। ব্যাট হাতে উইন্ডিজ বোলারদের শাসন করেছেন তিনি। স্যামুয়েলসের হাতে ক্যাচ দেওয়ার আগে ৮৪ বলে খেলেছেন ৯২ রানের (৯ চার, ৩ ছয়) অনবদ্য ইনিংস। দ্বিতীয় উইকেটে এড জয়েসের সঙ্গে ১০৬ রানের  জুটি গড়েন তিনি। জয়ের ভিত গড়ে দেওয়া স্টারলিং ফেরার দলকে এগিয়ে নেন এড জয়েস। তিনি নেইল ও’ব্রায়েনের সঙ্গে ৯৬ রানের জুটি গড়েন তিনি। স্টারলিংয়ের মতো সেঞ্চুরি মিস করেছেন এড জয়েসও। তিনি ৮৪ রান করে জেরমি টেলরের শিকার হন।

শুরু থেকেই আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিং করা নেইল ও’ব্রায়েন এক প্রান্ত আগলে খেলে গেছেন। শেষ দিকে উইলসন, কেভিন ও’ব্রায়েনরা দ্রুত ফিরলে নিজেকে স্থির রেখে খেলেছেন নেইল ও’ব্রায়েন। দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়েই মাঠ ছাড়েন তিনি। ৬০ বলে ১১ চারে ৭৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন নেইল ও’ব্রায়েন। চার মেরে জয় নিশ্চিত করেন ৬ রানে অপরাজিত থাকা মুনি।  ওয়েস্ট ইন্ডিজের জেরমি টেলর ৩টি উইকেট নেন।

এর আগে ৮৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদেই পড়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সাজঘরে ফিরে যান ডোয়াইন স্মিথ (১৮), ক্রিস গেইল (৩৬), ড্যারেন ব্র্যাভো (০), মারলন স্যামুয়েলস (২১) ও দিনেশ রামদিন (১)। ষষ্ঠ উইকেটে দলের হাল ধরেন লেন্ডল সিমন্স ও ড্যারেন স্যামি। তাদের ব্যাটে বিপদও কাটিয়ে উঠে ক্যারিবিয়ানরা। আইরিশদের পাল্টা আক্রমণ শুরু করেন এ দুই ক্যারিবিয়ান। তারা ১৫৪ রানের  জুটি গড়েন। সিমন্স তুলে নেন সেঞ্চুরি। তিনি ৮৪ বলে ১০২ রান করেন ৯টি চার ও ৫টি ছয়ে। স্যামি ৬৭ বলে ৮৯ রান (৯চার, ৪ছয়) করেন। আন্দ্রে রাসেল ১৩ বলে করেন ২৭ রান। আয়ারল্যান্ডের ডকরেল ৩টি, মুনি-সরেনসেন- কেভিন ও’ব্রায়েন ১টি করে উইকেট নেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *