আপনার স্মার্টফোন যেভাবে যত্নে রাখবেন
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আপনার স্মার্টফোন যেভাবে যত্নে রাখবেন

স্মার্টফোনগুলো বাজারে আসছে দারুন দারুন সব হার্ডওয়্যার এবং উচ্চ মানের প্রযুক্তি নিয়ে। আর এই প্রযুক্তি শুধু স্মার্টফোনের প্রসেসর, জিপিইউতেই সীমাবদ্ধ নেই বরং ডিসপ্লে ম্যাটারিয়ালেও লেগেছে এই ছোঁয়া। বর্তমানের স্মার্টফোনগুলোতে থাকছে খুবই মজবুত স্ক্র্যাচ-রেজিস্ট্যান্ট ডিসপ্লে।

স্মার্টফোনের ডিসপ্লে ভালো রাখতে যা করবেন
১। স্মার্টফোন ব্যবহার করার সময় শুধু মাত্র আপনার আঙ্গুল বা স্মার্টফোনের সাথে দেয়া স্টাইলাস ব্যবহার করুন।

২। খেয়াল রাখবেন আপনার স্মার্টফোন বা ট্যাবলেটটির টাচ স্ক্রিন যেন অন্য কোন ইলেক্ট্রিক ডিভাইসের সংস্পর্শে না আসে।

৩। স্মার্টফোন ব্যবহার করার সময় কিছুটা ল্যাগ অনুভূত হওয়া স্বাভাবিক। অনেকেই তখন দ্রুত আঙ্গুলের মাধ্যমে স্ক্রিনের উপর বামে বা ডানে সোয়াইপ করে দেখতে চায় যে আসলে কি পরিমাণ ল্যাগ হচ্ছে। এতে করে স্ক্রিনের উপর একটি বাড়তি চাপ পরে, ফলে স্ক্রিন ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে বা স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারে।

৪। স্ক্রিনের যে সকল সমস্যা রয়েছে তার মধ্যে ‘বার্ন-ইন’ সমস্যাটি অত্যন্ত পরিচিত একটি সমস্যা। সহজ কথায় এটি হচ্ছে ‘স্ক্রিন জ্বলে যাওয়া’ বা রঙ নষ্ট হয়ে যাওয়া। এই সমস্যা হতে পারে যদি আপনি একনাগারে অনেক ক্ষন আপনার স্মার্টফোনটির ডিসপ্লে চালু করে রাখেন। এতে করে স্বাভাবিক ভাবে যে সমস্যাটি হয় তা হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত গরম হবার কারনে স্ক্রিনে এই সমস্যাটি দেখা দেয়। এই সমস্যা এড়ানোর জন্য আপনি সেটিংস থেকে ডিসপ্লেতে আলো ঠিক কতটুকু সময় পরে ডিম হয়ে যাবে বা ডিসপ্লে স্লিপ মোডে যাবে নির্ধারন করে দিতে পারেন।

৫। স্ক্রিন প্রোটেক্টর ব্যবহার করুন। আপনার যদি কর্নিং গরিলা গ্লাস বিশিষ্ট একটি স্মার্টফোন থেকে থাকে তবুও আপনার একটি স্ক্রিন প্রোটেক্টর ব্যবহার করা উচিৎ।

৬। সরাসরি সূর্যের আলোর নিচে স্মার্টফোনটি রাখবেন না। এলসিডি, এলইডি ইত্যাদি ডিসপ্লে গুলো অনেকক্ষণ সরাসরি সূর্যের আলোর নিচে থাকলে এগুলোর কোয়ালিটি অনেকাংশে অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়।

৭। আপনার স্মার্টফোনটির স্ক্রিন পরিষ্কার করার জন্য মাইক্রোফাইবার কাপড় ব্যবহার করুন। কেননা, মাইক্রোফাইবার কাপড় স্মার্টফোনের পর্দার জন্য সবচাইতে ভালো কাজ করে। আর যদি আপনি পানি ব্যবহার করে পরিষ্কার করতে চান তবে খেয়াল রাখবেন তা যেন ফুটানো পানি হয় কেননা ট্যাপের পানিতে অনেক সময় ক্যালশিয়াম সহ আরও কিছু উপাদান থাকে যা স্ক্রিনের জন্য ক্ষতিকর। মোছার সময় জোরে চাপ প্রোয়োগ করবেন না।

স্মার্টফোনের গতি বাড়বে যেভাবে
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে স্মার্টফোনের বিভিন্ন ফিচারের পারফরম্যান্স কমতে থাকে। ফলে গতি ধীর হয়ে যায়। কাজ করার সময় সেটি যেমন হ্যাং হয়, তেমনি অন্যান্য উটকো ঝামেলাও তৈরি করে। শুধু গতিই নয়, কিছু কৌশল প্রয়োগ করলে ফোনের ব্যাটারি ব্যাকআপও বেড়ে যাবে।

১. ফোন ভাইরাসমুক্ত রাখুন
ফোনে র‍্যাম যত বেশি, গতিও তত বেশি। র‍্যামই আপনার ফোনের গতি বাড়িয়ে দেয়। তাই নিয়মিত ফোনের র‍্যাম পরিষ্কার রাখুন। প্রয়োজনে মাঝে মাঝে রিবুটও করতে পারেন।

২. ক্যাশ পরিষ্কার রাখুন
ক্যাশ বিল্ডআপ আপনার ফোনের গতি কমিয়ে দেয়। তাই নিয়মিত আইফোনের ক্যাশ পরিষ্কার করুন। প্রতিদিন কমপক্ষে একবার করতে পারলেই ভাল।

৩. মেসেজ জমানো কমান
আপনার ফোনের মেসেজ বক্সে জমে থাকা পুরনো মেসেজ পুরো ফোনটিকেই মন্থর করে দেয়। মেসেজে ছবি ভিডিও আদানপ্রদান করলে অনেক জায়গাও নষ্ট করে। তাই অপ্রয়োজনীয় মেসেজ ডিলিট করুন।

৪. অ্যানিমেশন বন্ধ রাখুন
নতুন অ্যাপ ওপেন করার সময় বা একটি অ্যাপ থেকে অন্য অ্যাপে যাওয়ার সময় কিছু অ্যানিমেশন দেখায় যেগুলো দেখতে বেশ ভাল লাগে। এগুলি ফোনকে ধীরগতির করে দেয়। ব্যাটারিও খরচ করে।

৫. ওয়াই-ফাই প্রয়োজন ছাড়া অফ রাখুন
যদি আপনার ওয়াই-ফাই সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তাহলে সঙ্গে সঙ্গে আপনার সেলুলার ডাটা অন হয়ে যাবে এমন ফিচার থাকলে ভাল। তাতে ব্যাটারি খরচ অনেকটা কমবে।

৬. লো পাওয়ার মোড অন রাখুন
ফোনের চার্জ যখন একেবারে নীচে নেমে আসে তখন ব্যাটারি বাঁচাতে লো পাওয়ার মোড অপশন অন করুন। এতে ব্যাটারি কয়েক ঘণ্টা পর্যন্ত বেশি সার্ভিস দেবে।

৭. লোকেশন সার্ভিস খুলবেন না
কিছু অ্যাপ সর্বদা আপনার লোকেশন জানান দিতে থাকে। কিন্তু স্মার্টফোন বা আইফোনে অনেক অ্যাপই লোকেশন সার্ভিস চালু করে রাখে। এগুলো বন্ধ করে দিয়ে ফোনের ব্যাটারি সংরক্ষণ করুন।

৮. ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ বন্ধ করুন
আপনি অনেক অ্যাপ ব্যবহার করে বন্ধ করে দেয়ার পরেও সেটি ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকে এবং নিয়মিত আপডেট নিতে থাকে। তাই সেটিংস মেন্যুতে গিয়ে ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ রিফ্রেশ বন্ধ করে রাখুন। ব্যাটারি ক্ষয় কমাবে। গতি বাড়াবে।

স্মার্টফোনের ব্যাটারি সুরক্ষিত রাখতে করণীয়
জেনে নিন আপনার স্মার্টফোনের ব্যাটারির স্থায়িত্ব বাড়ানোর ১০ উপায়-

১. আলোর মাত্রা কমান
মোবাইলের পর্দার আলো কমিয়ে রাখলে আপনার মোবাইলের ব্যাটারি অনেক দিন পর্যন্ত ভাল থাকবে। এর জন্য প্রথমে আপনার মোবাইলের সেটিং অপশনে যান। তারপর আলো কমানোর অপশনে ক্লিক করুন। এমনকি শুধু এক মিনিটেরও কম সময় পর্যন্ত আলো রাখার নির্দেশনা দিন।

২. রেডিওর সুইচ বন্ধ
অপ্রয়োজনের সময় ফোনের জিপিএস, ব্লুটুথ, এনএফসি ও ওয়াই-ফাই বন্ধ রাখুন। তাহলে আপনার মোবাইলের ব্যাটারি অনেকদিন টিকবে।

৩. নোটিফিকেশন বন্ধ
ফোনে ইনকামিং ইমেইল বার্তা (নোটিফিকেশন) বন্ধ রাখুন। তবে আপডেট ইমেইল জানার জন্য পিং সার্ভার চালু রাখা যেতে পারে। এতে করেও ব্যাটারি অনেকদিন ভাল থাকবে।

৪. ওয়াই-ফাই ব্যবহার
ইন্টারনেটে ঢুকতে চাইলে সেলুলারের চেয়ে ওয়াই-ফাই ব্যবহার করাই বেশি ভাল। এতে করে আপনার শখের স্মার্টফোনটির ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়বে না। ফলে স্থায়িত্ব বাড়বে ব্যাটারির।

৫. ফোন লক
ব্যবহারের সময় ছাড়া আপনার মোবাইল সবসময় বন্ধ রাখুন। কারণ তাতেও আপনি ফোন ও বার্তা গ্রহণ করতে পারবেন। আর লক না করলে যে কোনো সময় চাপ পড়ে এর বাটন কিংবা পর্দায় সমস্যা দেখা দিতে পারে। ফলে কমে যেতে পারে ব্যাটারির আয়ু।

৬. অ্যাপসের ব্যাপারে সতর্ক
ভিডিও দেখা কিংবা মাল্টিপ্লেয়ার গেমগুলো বেশি খেললে ফোনের ব্যটারি বেশি দিন দীর্ঘস্থায়ী হয় না। তাই যতটা সম্ভব এগুলোকে এড়িয়ে চলতে হবে। আবার ওয়েবে গান শুনলেও ব্যাটারির ক্ষতি হয়।

৭. অ্যাপ বন্ধের ব্যাপারে নিশ্চিত
কাজের পর এ্যাপগুলো ভালভাবে বন্ধ করে দিন। প্রয়োজন হলে আরও একবার চেক করুন।

৮. সঠিক তাপমাত্রায় ফোন
ফোন কখনই গরম কিংবা ঠান্ডায় রাখবেন না। তাহলে ব্যাটারির উপর এর প্রভাব পড়ে এটি তাড়াতাড়ি নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা দেয়া দেয়। তবে ৩২ থেকে ৯৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রাখলে এটি ভাল কাজ করে।

৯. সফটওয়্যারের সর্বশেষ ভার্সন ব্যবহার
সবসময় লেটেস্ট সব সফটওয়্যার আপডেট করতে হবে। মোবাইলের শক্তি বাড়াতে এটি অবশ্যই অনেক বেশি কার্যকরি। এর জন্য প্রয়োজনে ইউএসবি ক্যাবল এমনকি ওয়াই-ফাই সংযোগও দেয়া যেতে পারে।

১০. অতিরিক্ত ব্যাটারি
অনেক মোবাইলের সাথেই দুটো করে ব্যাটারি দেওয়া হয়। এর অন্যতম কারণই হল অতিরিক্ত প্রোটেকশন। কাজেই সবসময় দুটো ব্যাটারি থাকলে ভালো হয়। তাহলে প্রয়োজনের সময় আর অসুবিধায় পড়তে হয় না।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *