Angela-Merkel-wins-4th-term-as-chancellor-of-Germany

অ্যাঙ্গেলা মেরকেল টানা চতুর্থবার চ্যান্সেলর নির্বাচিত

অ্যাঙ্গেলা মেরকেল টানা চতুর্থবারের মতো জার্মানির চ্যান্সেলর র্নির্বাচিত হয়েছেন।

মেরকেলের জোট ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাট ইউনিয়ন (সিডিইউ) ও ক্রিশ্চিয়ান ইউনিয়নের (সিএসইউ) জোট ৩২ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট পেয়ে প্রায় ৭০ বছরের মধ্যে নির্বাচনে সবচেয়ে খারাপ ফল করলেও এখনো পার্লামেন্টে সবচেয়ে বড় দল হিসেবে টিকে আছে।

ক্ষমতাসীন জোটের শরিক সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক দল এসপিডি ২০ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট পেয়ে বিরোধী দলের আসনে বসবে।

উগ্র জাতীয়তাবাদী দল অলটারনেটিভ ফর জার্মানি (এএফডি) প্রথমবারের মতো ১৩ দশমিক ১ শতাংশ আসন জয় করে পার্লামেন্টের তৃতীয় বড় দল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর প্রথমবারের মতো জার্মানিতে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের পর এবারই প্রথম সিডিও ও সিএসইউ জোট সবচেয়ে শোচনীয়ভাবে কমসংখ্যক ভোট পেল।

১২ বছর ধরে চ্যান্সেলর পদে থাকা মেরকেল চতুর্থবার জয় পাওয়ার পর সমর্থকদের উদ্দেশে ভাষণ দিতে গিয়ে নির্বাচনী ফল নিয়ে তার হতাশার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তার প্রত্যাশা ছিল নির্বাচনে তিনি আরও ফল করবেন।

উগ্র জাতীয়তাবাদী এএফডির উত্থানের কারণে জনগণের মধ্যে উদ্বেগ, ভয় ও ক্ষোভের জন্ম হয়েছে তা শুনে এ দলটিকে পেছনের দিকে ঠেলে দেবেন বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন মেরকেল।

এএফডির ভালো ফলাফলের মূলে শরণার্থী ইস্যু প্রধান কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, তার সরকার অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তাসংক্রান্ত ইস্যুগুলো ভালোমতো সামাল দেবে।

প্রায় ৯ লাখ অনিবন্ধিত শরণার্থী ও অভিবাসীর জন্য জার্মানির দুয়ার খুলে দেয়ার জন্য মেরকেল এমন খারাপ ফল পেয়েছেন বলে বিশ্লেষকদের বিশ্বাস।

মার্টিন শুলৎসের নেতৃত্বাধীন এসপিডিও ১৯৪৯ সালের পর সবচেয়ে কম ভোট পেয়েছে। তিনি বলেন, যে ফল হয়েছে তাতে মেরকেলের সঙ্গে মহাজোটের ইতি ঘটল।

১৯৫০-এর দশকের পর এই প্রথম জার্মান পার্লামেন্টে ছয়টি দল প্রতিনিধিত্ব করতে যাচ্ছে।

রোববার সকাল আটটা থেকে এ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত চলে। সকালের দিকে ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কেন্দ্রগুলোতে ভিড় বাড়তে থাকে।

নির্বাচনপূর্ব সর্বশেষ পরিসংখ্যান উঠে আসে, আবারও ক্ষমতায় আসছেন মেরকেল। বুথফেরত জরিপেও তার জয়ের আভাস পাওয়া গিয়েছিল। নিজ নির্বাচনী এলাকা মেকেলবুর্গ ফর পোমেন রাজ্যের রুগেন-গ্রাইফভাল্ডারের কেন্দ্রে ভোট দেন মেরকেল। আর তার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক দলের মার্টিন শুলজ ভোট দেন নিজ এলাকা নর্থরাইন ভেস্টারফেল রাজ্যের ভুরসলেনে।

জার্মান পার্লামেন্টে ৫৯৮ আসনের মধ্যে ২৯৯টিতে সরাসরি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বাকি ২৯৯ আসন দলের প্রাপ্ত ভোটের অনুপাতে দলগুলোর মধ্যে ভাগ হয়ে থাকে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *