বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগরীর আহবায়ক মির্জা আব্বাস বলেন আগামীতে অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমেই আমরা এ ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটাবো
জাতীয়

‘অহিংস আন্দোলনে ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটাবো’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগরীর আহবায়ক মির্জা আব্বাস বলেন আগামীতে অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমেই আমরা এ ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটাবোবিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগরীর আহবায়ক মির্জা আব্বাস বলেন, ‘৮ নভেম্বরের জনসভায় জনগণের ঢল নামিয়ে নিজেদের রেকর্ড নিজেরাই ভাঙবো। ওইদিন সমগ্র ঢাকাকে জনসমুদ্রে পরিণত করবো। আগামীতে অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমেই আমরা এ ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটাবো।’

সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘জনগণের টাকা দিয়ে জনগণকে মারতে ব্রাজিল থেকে বুলেট আনা হচ্ছে। যতই বুলেট আনেন, জনগণ কোনো দিনই আপনাদের (আওয়ামী লীগ) মেনে নেবে না।’ বুলেটে  অবৈধ ক্ষমতা রক্ষা যাবে না।  এসময় অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটানো হবে বলে জানান তিনি।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি মহানগর কার্যালয় ভাসানী ভবনে মহানগর বিএনপি আয়োজিত যৌথসভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।

ভদ্রলোকেরা বিএনপির রাজনীতি করে দাবি করে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আর আওয়ামী লীগ কারা করে আমরা বলতে চাই না।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বারবার আমাদের চ্যালেঞ্জ করে-আমাদের (বিএনপি) নাকি কোমর ভেঙে গেছে। আমরা নাকি আন্দোলন করতে পারব না। তাদের এ কথা চোরের মার বড় গলা। তাদের ভাষা একেবারেই নোংরা। অশ্লীল। আমরা ওদের কথার জবাব দিতে চাই না।’

‘ঢাকা মহানগর আন্দোলনে ব্যর্থ’- এমন কথা প্রসঙ্গে আব্বাস বলেন, ‘রক্ত চোষা সরকারের বিরুদ্ধে তুমুল আন্দোলন গড়ে তুলে সারাদেশের লাখ লাখ নেতাকর্মী ও দেশবাসীর ধারণাকে আমরা ভুল প্রমাণিত করব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আন্দোলন করব কার বিরুদ্ধে? আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। কিন্তু আওয়ামী লীগ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও নিজেদের গুণ্ডা-পাণ্ডাদের নিয়ে যে সব যন্ত্রপাতি দিয়ে বাধা দেয়, তা ৭১ সালে পাক বাহিনীও ব্যবহার করতো না।’

মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আমরা বলেছি- আমাদের আন্দোলন হবে অহিংস, শান্তিপূর্ণ। আমরা তো আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুদ্ধ করতে যাবো না। আমরা আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও প্রশাসনের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ করবো না। জনগণের দাবি আদায়ে আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করব। কিন্তু আওয়ামী লীগ যদি আমাদের সে আন্দোলনে বাধা সৃষ্টি করে, তাহলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা তা প্রতিহত করব।’

বিএনপির ঢাকা মহানগরের শীর্ষ এ নেতা আরও বলেন, ‘জেল হত্যা নাকি জিয়াউর রহমানের নির্দেশে হয়েছে। কেমন মিথ্যা কথা। তাদের মত মিথ্যা কথা আমরা বলতে পারব না। জিয়াউর রহমান তখন নিজেই গৃহবন্দি ছিলেন। তিনি কেমন করে সে ঘটনায় জড়িত থাকেন।’ আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ করে আব্বাস বলেন, ‘এ সব মিথ্যা কথা বলবেন না। এ দেশের জনগণ এ সব মেনে নেবে তা মনে করবেন না।’

মির্জা আব্বাসের সভাপতিত্বে যৌথসভায় অংশ নেন স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, আবদুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম-মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, বরকতউল্লাহ বুলু, মহানগর নেতা আবু সাঈদ, যুবদল সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নীরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, ওলামা দলের সভাপতি হাফেজ আবদুল মালেক, তাঁতীদলের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন ইসলাম খান, ছাত্রদল সভাপতি রাজিব আহসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকার প্রমুখ।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *