রাজধানী ঢাকাকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলার লক্ষ্য নিয়ে ডাকা অবরোধে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে বলে কূটনীতিকদের জানিয়েছে এফবিসিসিআই।
অর্থনীতি

‘অবরোধে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে’

রাজধানী ঢাকাকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলার লক্ষ্য নিয়ে ডাকা অবরোধে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে বলে কূটনীতিকদের জানিয়েছে এফবিসিসিআই।রাজধানী ঢাকাকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলার লক্ষ্য নিয়ে ডাকা অবরোধে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে বলে কূটনীতিকদের জানিয়েছে এফবিসিসিআই।

সোনারগাঁও হোটেলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ এই সংগঠন আয়োজিত সভায় সংগঠনের সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ এ তথ্য তুলে ধরেন।

অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দাবিতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের লাগাতার অবরোধের শুরু থেকে উদ্বিগ্ন এফবিসিসিআই এই কর্মসূচি দেড় মাসে গড়ানোর পর বুধবার বিদেশিদের কাছে ক্ষতির চিত্র তুলে ধরতে এই সভার আয়োজন করে।

সভায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জাপান, কোরিয়া, ভারত ও চীনসহ ২৮টি দেশের দূতাবাসের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ বলেন, চলমান অবরোধ-হরতালে সামগ্রিক অর্থনীতিতে প্রতিদিন ২ হাজার ৭০০ কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। গত ৪৪ দিনে বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে মোট ১২০ লাখ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘দেশ যখন সামগ্রিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তখন চলতি বছরের শুরু থেকে কিছু রাজনৈতিক দল সহিংস কর্মসূচি নেওয়ায় আমাদের অর্থনীতিকে ব্যাপক মূল্য দিতে হচ্ছে। অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাবের পাশাপাশি এই কর্মসূচিতে নাশকতায় ৮৮ জনের প্রাণহানি, ২০০ মানুষের অগ্নিদগ্ধ হয়।’

এছাড়া রাজধানী ঢাকাকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলার লক্ষ্য নিয়ে ডাকা অবরোধে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে বলে উঠে আসে এসবিসিসিআই সভাপতির মূল বক্তব্যে।

তিনি বলেন, ‘চলমান অবরোধ-হরতাল সারা দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। পরিবহন চলাচল বাধাগ্রস্ত হওয়ায় আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম ও অভ্যন্তরীণ সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে।’

ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘আমরা ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের জন্য শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চাই।’

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট বলেন, ‘বাংলাদেশের সব সম্ভাবনা এখানকার জনগণের ব্যবহারের অধিকার রয়েছে। এটি গণতান্ত্রিক দেশ, এখানে ব্যবসায়ী, নাগরিক প্রতিনিধি আছে। এখানকার সমস্যা আমরা আশা করি, তাদের মাধ্যমেই সমাধান হবে।’

রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত নিকোলায়েভ বলেন, ‘আমি এটা অবশ্যই বলব, যে কোনো দায়িত্বশীল সরকারের কাজ দেশের এবং মানুষ ও অর্থনীতির নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। আমরা আশা করব, সরকার সেই দায়িত্বশীলতা দেখাবে।’

সভায় জাপানের রাষ্ট্রদূত শিরো সাদোশিমা, কানাডার হাইকমিশনার বেনোয়া-পিয়ের লাহামি, দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি ইয়ান ইয়ংও বক্তব্য রাখেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *